মেনু নির্বাচন করুন


নো মাস্ক নো সার্ভিস। করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে এখনই ডাউনলোড করুন Corona Tracer BD অ্যাপ। ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন https://bit.ly/coronatracerbd নিজে সুস্থ থাকুন-অন্যকে সুস্থ রাখুক।


শিরোনাম
ছাগলনাইয়া থানা
বিস্তারিত

ছাগলনাইয়া থানা

মোবাইলঃ- +৮৮০১৩২০১১৩০৫৪

ছবি
label.column.field_office_cism

•কি সেবা কিভাবে পাবেন•


★থানায় অভিযোগ করার প্রক্রিয়া_কিভাবে অভিযোগ দায়ের করবেন★

কি কি বিষয়ে থানায় অভিযোগ করবেনঃ-

  • পারিবারিক ছোট খাট বিরোধ সংক্রান্ত।
  • স্বামী স্ত্রী সম্পর্কিত বিরোধ সংক্রান্ত।
  • সাধারণ মারপিট, ভয়ভীতি ও হুমকির বিষয়ে।
  • অধর্তব্য অপরাধের বিষয় সংক্রান্ত।
  • অন্যান্য।
  • যে কোন অভিযোগের বিষয়ে প্রথমে একটি আবেদন লেখতে হবে।

যে কোন বিষয়ে অভিযোগের ক্ষেত্রে আবেদনে বাধ্যতামূলক বিষয়বস্তুঃ-

  • আবেদনকারীর পূর্ণাঙ্গ নাম, ঠিকানা ও বয়স।
  • অভিযোগের বিষয়/বস্তুটির বিস্তারিত বর্ণনা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ঘটনার তারিখ ও সময় উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ঘটনাস্থল বিস্তারিতভাবে উল্লেখ্য করতে হবে।
  • অভিযোগের বিষয়/বস্তু সম্পর্কে আপনার গৃহীত ব্যবস্থা উল্লেখ্য করতে হবে।

কিভাবে অভিযোগ করবেনঃ-

  • একটি নির্ভুল ও সঠিক তথ্য সম্বলিত অভিযোগের আবেদন নিয়ে থানা যেতে হবে।
  • থানায় থানা পাহারারত (সেন্ট্রি ডিউটিরত) কনস্টেবল এর নিকট আপনার সঠিক পরিচয় দিতে হবে।
  • থানায় আগমনের সঠিক কারণ জানাতে হবে।
  • আপনার প্রস্তুতকৃত আবেদনটি নিয়ে সরাসরি অথবা ডিউটি অফিসারের মাধমে অফিসার ইন-চার্জ এর সাথে দেখা করুন।
  • আবেদনের বিষয়বস্তু নিয়ে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করুন।
  • ডিউটি অফিসার/অফিসার ইন-চার্জ এর প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিন।
  • আপনার আবেদনটি অফিসার ইন-চার্জ অথবা তার নির্দেশক্রমে ডিউটি অফিসার গ্রহণ করে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
  • আপনার অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত কিংবা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য থানার কোন অফিসারকে মনোনীত করা হয়েছে তার সাথে যোগাযোগ করুন।

আপনার দায়েরকৃত অভিযোগের বিষয়ে গৃহীত আইনানুগ ব্যবস্থাঃ-

  • অভিযোগ তদন্তকারী অফিসার অভিযোগের বিষয়টি পর্যালোচনা করবেন।
  • বিষয়টি অধর্তব্য অপরাধ হলে থানার সাধারণ ডায়েরীতে অন্তর্ভূক্ত করে বিজ্ঞ আদালতের অনুমতিক্রমে তদন্তের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
  • ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে বিষয়টি নিষ্পত্তির প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।
  • স্থানীয়ভাবে নিষ্পত্তি না হলে তদন্তকারী অফিসার প্রমাণীত বিষয়টি বিজ্ঞ আদালতে নন.এফ.আই.আর প্রশিকিউশন দাখিল করবেন।

 থানায় সাধারণ ডায়েরী করার প্রক্রিয়া-কিভাবে সাধারণ ডায়েরী করবেনঃ-

কি কি বিষয়ে সাধারণ ডায়েরী করবেনঃ-

  • দলিল/পাসপোর্ট সহ গুরুত্বপূর্ণ কাগজ পত্রাদি হারানোর বিষয়ে।
  • নিখোঁজ ব্যক্তির বিষয়ে।
  • সাধারণ মারপিট, ভয়ভীতি ও হুমকির বিষয়ে।
  • অন্যান্য।

যে কোন সাধারণ ডায়েরী'র বিষয়ে প্রথমে একটি আবেদন লেখতে হবে।

হারানো বিষয়ে সাধারণ ডায়েরীর ক্ষেত্রে আবেদনে বাধ্যতামূলক বিষয়বস্তুঃ-

  • আবেদনকারীর পূর্ণাঙ্গ নাম, ঠিকানা ও বয়স।
  • হারানো বিষয়/বস্তুটির বিস্তারিত বর্ণনা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • হারিয়ে যাওয়ার তারিখ ও সময় উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ঘটনাস্থল অর্থাৎ কোথায় হারিয়ে গেছে তা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • হারানো বিষয়/বস্তু সম্পর্কে আপনার গৃহীত ব্যবস্থা উল্লেখ্য করতে হবে।

নিখোঁজ ব্যক্তির বিষয়ে সাধারণ ডায়েরীর ক্ষেত্রে আবেদনে বাধ্যতামূলক বিষয়বস্তুঃ-

  • আবেদনকারীর পূর্ণাঙ্গ নাম, ঠিকানা ও বয়স উল্লেখ্য করতে হবে।
  • নিখোঁজ ব্যক্তির দৈহিক বিস্তারিত বর্ণনা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • নিখোঁজ হওয়ার তারিখ ও সময় উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ঘটনাস্থল অর্থাৎ কোথায় এবং কিভাবে নিখোঁজ হয়েছে তা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • নিখোঁজ ব্যক্তি সম্পর্কে আপনার গৃহীত ব্যবস্থা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • আবেদনকারীর সাথে নিখোঁজ ব্যক্তির সর্ম্পক উল্লেখ্য করতে হবে।
  • নিখোঁজ ব্যক্তি সম্পর্কে কোন তথ্য গোপন করা যাবে না।

কিভাবে সাধারণ ডায়েরী করবেন।

  • একটি নির্ভুল ও সঠিক তথ্য সম্বলিত সাধারণ ডায়েরীর আবেদন নিয়ে থানা যেতে হবে।
  • থানায় থানা পাহারারত (সেন্ট্রি ডিউটিরত) কনস্টেবল এর নিকট আপনার সঠিক পরিচয় দিতে হবে।
  • থানায় আগমনের সঠিক কারণ জানাতে হবে।
  • আপনার প্রস্তুতকৃত আবেদনটি নিয়ে ডিউটি অফিসার কিংবা অফিসার ইন-চার্জ এর সাথে দেখা করুন।
  • আবেদনের বিষয়বস্তু নিয়ে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করুন।
  • ডিউটি অফিসার/অফিসার ইন-চার্জ এর প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিন।
  • ডিউটি অফিসারকে কিছক্ষণ সময় দিয়ে অপক্ষো করুন।
  • আপনার আবেদনটি ডিউটি অফিসার/অফিসার ইন-চার্জ থানার সাধারণ ডায়েরীতে অন্তর্ভূক্ত করার পর আবেদনের অপর কপিতে জিডি নম্বর, সীল, স্বাক্ষর ও তারিখ সহ আপনাকে বুঝিয়ে দিবে।
  • ডিউটি অফিসার/অফিসার ইন-চার্জ কর্তৃক প্রদত্ত জিডি নম্বর, সীল, স্বাক্ষর ও তারিখ সহ আপনার আবেদনের ২য় কপিটি ভালভাবে সংরক্ষণ করুন।

 

থানায় মামলা করার প্রক্রিয়া//কিভাবে মামলা করবেনঃ-

কি কি বিষয়ে মামলা করবেনঃ-

  • চুরি/ডাকাতি/ছিনতাই/বলপূর্বক গ্রহণ/দস্যুতা/আগুন লাগানো ইত্যাদি বিষয়ে।
  • যৌতুক/নারী নির্যাতন/ধর্ষণ/অপহরণ/অপহরণ+ধর্ষণ/যৌণপীড়ন/হয়রানী।
  • মারামারি/খুন জখম অথবা হত্যা বিষয়ে।
  • মানব পাচার/এসিড নিক্ষেপ/পরিকল্পিত খুন ইত্যাদি।
  •  অন্যান্য।

যে কোন মামলার বিষয়ে প্রথমে একটি আবেদন/এজাহার লেখতে হবে।

মামলার ক্ষেত্রে আবেদনে/এজাহারে বাধ্যতামূলক বিষয়বস্তুঃ-

  • আবেদনকারীর/এজাহারকারীর পূর্ণাঙ্গ নাম, ঠিকানা ও বয়স।
  • মামলার/ঘটনার বিষয়/বস্তুর বিস্তারিত বর্ণনা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ঘটনার তারিখ ও সময় উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ঘটনাস্থল অর্থাৎ কোথায় ঘটনা ঘটেছে তা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • মামলার বিষয়/বস্তু সম্পর্কে আপনার গৃহীত ব্যবস্থা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সাক্ষী'সহ অন্যান্য সাক্ষীদের নাম ঠিকানা উল্লেখ্য করতে হবে।
  • ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অথবা চুরি/ডাকাতি/ছিনতাই/দস্যুতা/বলপূর্বক এর মাধ্যমে গ্রহণের মালামালের বিবরণ সহ মূল্য কিংবা নগদ অর্থের পরিমাণ উল্লেখ্য করতে হবে।

কিভাবে মামলা করবেন।

  • একটি নির্ভুল ও সঠিক তথ্য সম্বলিত মামলার আবেদন/এজাহার নিয়ে থানা যেতে হবে।
  • থানায় থানা পাহারারত (সেন্ট্রি ডিউটিরত) কনস্টেবল এর নিকট আপনার সঠিক পরিচয় দিতে হবে।
  • থানায় আগমনের সঠিক কারণ জানাতে হবে।
  • আপনার প্রস্তুতকৃত আবেদনটি নিয়ে ডিউটি অফিসার কিংবা অফিসার ইন-চার্জ এর সাথে দেখা করুন।
  • আবেদনের বিষয়বস্তু নিয়ে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করুন।
  • ডিউটি অফিসার/অফিসার ইন-চার্জ এর প্রশ্নের সঠিক উত্তর দিন।
  • আবেদন/এজাহারটি অফিসার ইন-চার্জকে দিন।
  • আপনার আবেদন/এজাহারটি অফিসার ইন-চার্জ তদন্তপূর্বক/সরাসরি থানার এফ.আই.আর বহিতে অন্তর্ভূক্ত করে একজন তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করবেন এবং পরবর্তী প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।
  • পরবর্তীতে আপনি মামলার কপিটি সংগ্রহ পূর্বক ভালভাবে সংরক্ষণ করুন।
  • *** অন্যথায় আপনি বিজ্ঞ আদালতের আদেশের মাধ্যমে থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করতে পারেন।
  • *** বিজ্ঞ আদালতে সরাসরি মামলা করে বিজ্ঞ আদালতের আদেশ মোতাবেক থানা হতে উক্ত মামলার ঘটনা সংক্রান্তে তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করাতে পারেন।

 

কিভাবে পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের আবেদন করবেন এবং পাবেন-

পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের জন্য অন-লাইনে আবেদন করতে হবে।

আবেদনের ঠিকানা-http://pcc.police.gov.bd/en/f?p=500:1::::::

 

পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের জন্য অন-লাইনে আবেদনে বাধ্যতামূলক বিষয়বস্তুঃ-

 

১। অনলাইনে যথাযথভাবে পূরণকৃত আবেদন পত্র ।
২। ১ম শ্রেণীর গেজেটেড কর্মকর্তা দ্বারা সত্যায়িত পাসপোর্টের তথ্য পাতার স্ক্যানকপি

অথবা

বিদেশে অবস্থানকারী বাংলাদেশী নাগরিকগনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দেশে বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক সত্যায়িত পাসপোর্টের তথ্য পাতার স্ক্যানকপি

অথবা

বিদেশী নাগরিকদের ক্ষেত্রে নিজ দেশের জাস্টিস অব পিস (Justice of Peace) কর্তৃক সত্যায়িত পাসপোর্টের তথ্য পাতার স্ক্যানকপি ।
৩। বাংলাদেশ ব্যাংক/ সোনালী ব্যাংকের যে কোন শাখা থেকে (১-৭৩০১-০০০১-২৬৮১) কোডে করা ৫০০/- (পাঁচশত) টাকা মূল্যমানের ট্রেজারী চালান অথবা অনলাইনে ক্রেডিট/ডেবিট কার্ডের মাধ্যমে প্রযোজ্য ক্ষেত্রে নির্ধারিত সার্ভিসচার্জ সহ ফি প্রদান।

 

আবেদনের নিয়মাবলী

ধাপ : ১

অনলাইন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট ওয়েবসাইটে নিবন্ধন করে যে কেউ নিজের জন্য অথবা অন্যের পক্ষে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট এর জন্য আবেদন করতে পারবে। নিবন্ধন করার জন্য এখানে  লগ-ইন করুন।

ধাপ : ২

নিবন্ধিত ব্যবহারকারী অনলাইন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট সাইটে লগ-ইন করার পর Apply মেনুতে ক্লিক করে আবেদনপত্রটি যথাযথভাবে পূরণ করুন।

ধাপ : ৩

আবেদন ফরমের প্রথম ধাপে ব্যক্তিগত বিস্তারিত তথ্য, দ্বিতীয় ধাপে বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা পূরণ করুন। আপনার বর্তমান ঠিকানা যে জেলা বা মেট্রোপলিটন এলাকায় অবস্থিত সেই ঠিকানায় পুলিশ ভেরিফিকেশন সম্পন্ন হবে।

ধাপ : ৪

আবেদন ফরমের তৃতীয় ধাপে প্রয়োজনীয় ডকুমেণ্টসমূহের স্ক্যান কপি আপলোড করুন।

ধাপ : ৫

আবেদন ফরমের চতুর্থ ধাপে আপনার এন্ট্রিকৃত সকল তথ্য দেখানো হবে। আবেদনে কোন ভুল থাকলে তা পূর্ববর্তী ধাপসমূহে ফেরত গিয়ে পরিবর্তন করা যাবে। তবে চতুর্থ ধাপে আবেদনটি সাবমিট করার পর আর কোন পরিবর্তন করার সুযোগ থাকবে না।

ধাপ : ৬

আবেদন ফরমের পঞ্চম ধাপে ফি পরিশোধ করার জন্য Pay Offline বাটনে ক্লিক করুন। চালানের মাধ্যেমে ফি পরিশোধের উপায় এবং পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে প্রদত্ত নির্দেশনা অনুসরণ করুন।

ধাপ : ৭

চালানের মূল কপিটি আপলোড করার পূর্বে অবশ্যই এর উপর এপ্লিকেশন রেফারেন্স নম্বরটি লিখে দিন। অন্যথায় আপনার পেমেন্টটি গ্রহণযোগ্য হবেনা এবং আবেদনটি বাতিল বলে গণ্য হবে।

 

পুলিশ ক্লিয়ারেন্সের তদন্ত প্রকিয়া//কিভাবে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স পাবেন-

১। আপনার অন-লাইনে আবেদনটি সংশ্লিষ্ট জেলা/মেট্রোর পুলিশ সুপার/ইউনিট প্রধান সাহেবের আইডিতে জমা হবে।

২। আবেদনটি পরবর্তীতে তদন্ত এবং পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট প্রদানের জন্য সংশ্লিষ্ট থানার আইডিতে প্রেরণ করা হবে।

৩। থানায় অফিসার ইন-চার্জ সাহেবের আইডিতে আবেদনটি রিসিভ করার পর তা তদন্তের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

৪। একজন দায়িত্বশীল অফিসার দ্বারা কিংবা থানার অফিসার ইন-চার্জ নিজে বিষয়টি তদন্ত করবেন।

৫। প্রার্থীর সকল তথ্য সঠিক থাকলে পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট'টি অন-লাইন হতে প্রিন্ট করতঃ অফিসার ইন-চার্জ সীল স্বাক্ষর এবং থানার      

     গোল সীল মেরে পুলিশ সুপার সাহেবের কার্যালয়ে প্রেরণ করবেন।

৬। তদন্তকালে প্রার্থীর তথ্যাদি সঠিক না পাওয়া গেলে আবেদনটি Negative করা হবে এবং সেক্ষেত্রে প্রার্থীকে পুনারায় সঠিকভাবে আবেদন করতে হবে।

৭। থানা হতে প্রেরণকৃত ক্লিয়ারেন্সটি এসপি অফিসে পুলিশ সুপার সাহেবের সীল ও স্বাক্ষর হয়ে ঢাকা ফরেন মিনিস্ট্রিতে সীল ও স্বাক্ষরীত হয়ে আসবে।

৮। আপনার পুলিশ ক্লিয়ারেন্সটি এসপি অফিস//থানা হতে রিসিভ করুন এবং যত্নসহকারে সংরক্ষণ করুন।

★★★★★


চেয়ারম্যানের বাণী

স্থানীয় সরকার তথা ইউনিয়ন পরিষদের উৎপত্তি ১৮৭০ সালে।অর্থনৈতিক প্রশাসনিক ও রাজনৈতিক কারণে পল্লী অঞ্চলের ভিত্তি সৃদুঢ় করার লক্ষ্যে প্রথমত চৌকিদার পঞ্চায়েত উদ্ভব ঘটে।কালের বিবর্তনে সর্বশেষ ১৮৭৩ সালে এই স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা নামকরন করা হয় ইউনিয়ন পরিষদ।তৃণমূল পর্যায়ে সার্বিক উন্নয়নে অবকাঠামো নির্মান স্থানীয় সম্পদের সুষ্ঠ ব্যবহার ও উন্নয়ন নিশ্চিতকরণ এবং সরকারের বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম বাস্তবায়ন সহ ইত্যাদি ইউনিয়ন পরিষদের মৌলিক দায়িত্ব। এছাড়া আইন শৃঙ্খলা রক্ষা, গ্রাম আদালতের মাধ্যমে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা, জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন,ওয়ারিশ এবং ট্রেড লাইসেন্স নিবন্ধন, অনলাইনে সকল প্রকার কাজ সম্পাদন, বিভিন্ন শুমারী, বিভিন্ন প্রকার সনদ প্রদান, শিক্ষা,স্বাস্থ্য,স্যানিটেশন সহ নানা বিধ-সেবা মূলক কর্মকান্ড সম্পাদন করে থাকে। উল্লিখিত কর্মকান্ড বর্তমান সরকারের ঘোষিত একবিংশ শতাব্দীর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নের ওয়েব পোর্টাল হলো একটি অংশ, এই অংশটুকুর কাজ করার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহ এটুআই এর সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে ধন্যবাদ জানাই।
•আল্লাহ হাফেজ•

★ মোশারাফ হোসেন ★

চেয়ারম্যান

৮নং রাধানগর ইউনিয়ন পরিষদ, ছাগলনাইয়া, ফেনী।